দারুণ জুটি গড়ে তামিমের বিদায়

ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেওয়ার ১৭৯ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করছে বাংলাদেশ। তবে নাজমুল হোসেন শান্তর বিদায়ের পর তামিম ইকবাল ও লিটন দাস ভালো জুটি গড়েন। অবশেষে অধিনায়ক তামিমও আউট হয়েছেন।এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ১৯ ওভার শেষে ২ উইকেট হারিয়ে ৭৫ রান করেছে বাংলাদেশ।বাংলাদেশের ইনিংসে এ ম্যাচে ব্যর্থ নাজমুল হোসেন শান্ত। তিনি ১৩ বল মোকাবিলা করে মাত্র ১ রান তুলে আলজারি জোসেফের বলে আউট হন। এরপর তামিম ইকবাল ও লিটন দাস ৫০ রানের জুটি গড়েন। দারুণ ব্যাট করতে থাকা তামিম শেষ অবধি গুডাকেশ মোটির বলে ফেরেন। দলনেতা ৫২ বলে ৪টি চারে ৩৪ রান করেছেন।এর আগে দুই বছর পর ওয়ানডে দলে ফিরেই চমক দেখান তাইজুল ইসলাম। তার অসাধারণ ঘূর্ণিতে প্রথমে ব্যাট করা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪৮.৪ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৭৮ রান করতে পেরেছে।শনিবার তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের তৃতীয় ও শেষটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ। গায়ানার প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ম্যাচটি মাঠে গড়ায়। যেখানে ক্যারিবীয়দের হোয়াইটওয়াশ করার লক্ষ্যে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন টাইগার অধিনায়ক তামিম ইকবাল।প্রত্যাবর্তনের ম্যাচে নেমে নিজের প্রথম বলেই উইকেট নেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। তিনি ওপেনার ব্র্যান্ডন কিংকে ব্যক্তিগত ৮ রানে বোল্ড করেন। নিজের পরের ওভারে আরেক ওপেনার শাই হোপকেও বিদায় করেন এই বাঁহাতি। অন্য প্রান্তে শামারাহ ব্রুকসকে এলবি করে ফেরান মোস্তাফিজুর রহমান।চতুর্থ উইকেট জুটিতে অধিনায়ক নিকোলাস পুরানের সঙ্গে ৬৭ রানের পার্টনারশিপ গড়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে উইন্ডিজ। তবে নাসুম আহমেদের বলে কার্টি তামিম ইকবালকে ক্যাচ দিলে জুটি ভাঙে। কার্টি ৬৬ বলে ৩৩ রান করেন।এরপর দ্রুতই উইকেট হারাতে থাকে স্বাগতিকরা। পুরানকে বোল্ড করেন তাইজুল। পুরান উইন্ডিজদের হয়ে সর্বোচ্চ ৭৩ রান করেন। ১০৯ বলে ৪টি চার ও দুটি ছক্কা হাঁকান তিনি। পরে নিজের নিজের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে প্রথমবার ৫ উইকেট দখল করেন তাইজুল। ক্যারিবীয় দলের আর কেউই সেভাবে দাঁড়াতে পারেননি।তাইজুল ১০ ওভার বল করে ২৮ রানের বিনিময়ে দুটি মেডেন নিয়ে ৫ উইকেট দখল করেন। মোস্তাফিজ ও নাসুম দুটি করে উইকেট পান। মোসাদ্দেক হোসেন একটি উইকেট নেন।এ ম্যাচে বাংলাদেশ দলে একটি পরিবর্তন হয়েছে। পেসার শরীফুল ইসলামের বদলে একাদশে এসেছেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। উইন্ডিজ দলেও একটি বদল হয়েছে। কাইল মেয়ার্সে পরিবর্তে কেসি কার্টি এসেছেন।বাংলাদেশ প্রথম দুই ম্যাচ জিতে ২-০ ব্যবধানে সিরিজ নিশ্চিত করেছে।বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত, মাহমুদউল্লাহ, আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান (উইকেটরক্ষক), মেহেদী হাসান মিরাজ, মোসাদ্দেক হোসেন, নাসুম আহমেদ, তাইজুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান।ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ: নিকোলাস পুরান (অধিনায়ক), শাই হোপ (উইকেটরক্ষক), রোভম্যান পাওয়েল, শামারাহ ব্রুকস, ব্র্যান্ডন কিং, কেসি কার্টি, রোমারিও শেফার্ড, কিমো পল, গুডাকেশ মতি, আলজারি জোসেফ, আকিল হোসেন।

 

 

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.