বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০২৪
Homeঅন্যান্যসংবাদ সারাদেশপটুয়াখালীতে ৩০০ বছরের পুরনো প্রত্নবস্তুর সন্ধান পেয়েছেন কৃষক

পটুয়াখালীতে ৩০০ বছরের পুরনো প্রত্নবস্তুর সন্ধান পেয়েছেন কৃষক

 

ডেস্ক খবর ঃ

পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার কালারাজা গ্রামের কৃষক আব্দুল মান্নান মৃধা ২০১৫ সালে একটি পুকুর খননের সময় কিছু প্রত্নবস্তু খুঁজে পান।সাত বছর পর গত ২১ নভেম্বর গলাচিপা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মহিউদ্দিন আল হেলাল আবদুল মান্নানের উপস্থিতিতে খুলনা আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের একটি প্রতিনিধি দলের কাছে প্রত্নবস্তু হস্তান্তর করেন।

প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর সূত্র জানায়, বরিশাল বিভাগীয় জাদুঘরে 300 বছরেরও বেশি পুরানো এবং বাকলা-চন্দ্র রাজ্যের নিদর্শনগুলো প্রদর্শন করা হবে।দপ্তর জানিয়েছে যে জিনিসগুলির মধ্যে কাঠের লাঠি এবং বেলচা, পোড়ামাটির তৈরি কয়েকটি বাতি এবং অজানা প্রাণীর হাড় রয়েছে।রাজ্যটি বর্তমান বরিশালের বাকেরগঞ্জ, পটুয়াখালী, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া এবং বাগেরহাটের পূর্বাঞ্চল নিয়ে গঠিত, বিভাগ জানিয়েছে।

মান্নান 2015 সালে একটি পুকুর খননের সময় নয় ফুট গভীরে প্রত্নবস্তুগুলি খুঁজে পান।তিনি প্রত্নবস্তুর প্রত্নতাত্ত্বিক ও ঐতিহাসিক মূল্য উপলব্ধি করেন এবং সেগুলো সংরক্ষণের যত্ন নেন। কিন্তু কীভাবে এবং কোন সংস্থার কাছে তিনি নিদর্শনগুলি হস্তান্তর করবেন তা বের করতে তার পাঁচ বছর লেগেছিল।২০১৯ সালের এপ্রিলে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের একটি দল জরিপ ও গবেষণার জন্য গলাচিপায় গেলে তিনি তার আবিষ্কারের কথা জানান। দলটি তাকে অনুরোধ করে যে, প্রত্নসামগ্রীগুলো অবিলম্বে অধিদপ্তরে হস্তান্তর করে এর ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্বিক মূল্য খুঁজে বের করার জন্য। কিন্তু মহামারীর কারণে হস্তান্তর প্রক্রিয়া বিলম্বিত হয়েছিল।পরে অধিদপ্তরের আঞ্চলিক পরিচালক আফরোজা খান মিতার লিখিত নির্দেশে গলাচিপা ইউএনও খুলনা আঞ্চলিক কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোঃ গোলাম ফেরদৌসের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দলের কাছে প্রত্নসামগ্রী হস্তান্তর করেন।প্রত্নবস্তু গ্রহণকালে ফেরদৌস বলেন, বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের ইতিহাসে কালারাজা গ্রাম সুপরিচিত হলেও প্রত্নতাত্ত্বিক উপকরণ ও প্রত্নবস্তুর অভাবে এখন পর্যন্ত স্থান বা রাজ্য সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যায়নি।এই আবিষ্কার প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরকে ভবিষ্যতে গবেষণা চালাতে সহায়তা করবে বলে তিনি জানান।প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের মতে, জয়দেব বাকলা চন্দ্রদ্বীপের রাজা ছিলেন। তার মৃত্যুর পর তার কন্যা কমলা সুন্দরী সিংহাসনে আরোহণ করেন। রানী কমলার স্বামী বলভদ্রবসু।স্থানীয়রা বলভদ্রবসুকে “কালরাজা” বলে ডাকে এবং তার নামেই গ্রামের নামকরণ করা হয়।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বাধিক পঠিত

সাম্প্রতিক মন্তব্য