নিরাপত্তার পাশাপাশি মাদক উদ্ধারে দক্ষতা দেখাচ্ছে তারা

প্রশিক্ষণ ও পরীক্ষা

কে-৯ ডগ দলের সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারা জানান, একটি কুকুরের প্রশিক্ষণের সবচেয়ে উপযোগী সময় ছয় মাস থেকে এক বছর। তবে বাছাই করা কুকুরগুলোকে ছয় মাস পর্যন্ত পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। এই সময়ে তাদের বাধ্য হতে শেখানো হয়। প্রশিক্ষণ শুরুর প্রাথমিক পর্যায়ে হ্যান্ডলার প্রথমেই কুকুরকে বাধ্য হওয়ার প্রশিক্ষণ দেন। তারপর যে কাজে কুকুরটিকে ব্যবহার করা হবে, সেই কাজের জন্য প্রশিক্ষণ শুরু হয়। যেমন মাদক উদ্ধারে ব্যবহার করা হলে তাকে বিভিন্ন ধরনের মাদক চেনার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। বিভিন্ন ধরনের মাদকের গন্ধের সঙ্গে তাকে পরিচিত করা হয়। আবার যে কুকুরকে বিস্ফোরক শনাক্তে ব্যবহার করা হবে, তাকে বিভিন্ন ধরনের বিস্ফোরকের গন্ধের সঙ্গে পরিচিত করা হয়। গত রোববার পুলিশ অর্ডার ম্যানেজমেন্টের (পিওএম) মাঠে গিয়ে দেখা যায়, কে-৯ দলের কুকুরগুলোকে নিয়ে নানা কসরত চলছে। একপর্যায়ে একজন পুলিশ সদস্য সন্ত্রাসী সেজে অস্ত্র-বিস্ফোরক নিয়ে মাঠে প্রবেশ করেন। একটি কুকুর ক্ষিপ্রতার সঙ্গে তাঁকে আক্রমণ করে। কিছু সময় ধরে দুই পক্ষে ধ্বস্তাধ্বস্তি চলে। সন্ত্রাসী সাজের পুলিশ সদস্যকে মাটিতে ফেলে দেয় কুকুর। তাঁকে পরাজিত করে কুকুরটি। পরে কয়েকজন এসে কুকুরটিকে নিবৃত্ত করেন। অস্ত্র-বিস্ফোরক নিয়ে মাঠে প্রবেশ করা পুলিশ সদস্যকে উদ্ধার করেন। কে-৯ দলের পরিদর্শক ফখরুল আলম বলেন, কুকুরগুলোকে শুধু প্রশিক্ষণ দিয়েই কার্যক্রম শেষ করা হয় না; তাদের কর্মক্ষমতা-দক্ষতা বাড়াতে নিয়মিত পরীক্ষা নেওয়া হয়। প্রতি তিন মাস পরপর এই পরীক্ষা নেওয়া হয়। যেমন ২০টি নমুনা বা জিনিস লুকিয়ে রাখা হয়। ২০ মিনিটের মধ্যে সব কটি জিনিস খুঁজে বের করতে হয় কুকুরগুলোকে। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কুকুরগুলো স্বল্প সময়ে এগুলো খুঁজে বের করে ফেলে।

খাবার

স্কোয়াডের কুকুরগুলোকে আলাদা আলাদা কক্ষে রাখা হয়। খাবার দেওয়া হয় এক বেলা। খাবারের পরিমাণ তিন কেজি। খাবারের মধ্যে রাখা হয় গরু ও মুরগির মাংস, গন্ধমুক্ত সাদা চাল, পাউরুটি, রসুন, সয়াবিন, তরল দুধ, ডিম ও বিভিন্ন ধরনের সবজি।
খাবারের বিষয়ে পুলিশ কর্মকর্তা ফখরুল আলম বলেন, কুকুরগুলোকে কর্মক্ষম রাখার জন্যই নির্দিষ্ট পরিমাণে একবেলা খাবার দেওয়া হয়। বেশি খাবার দিলে কুকুরগুলোর ওজন বেড়ে যায়, অলস হয়ে পড়ে। এতে তারা কর্মক্ষমতা হারায়। ফখরুল আলম জানান, একটি কুকুর গড়ে ১৪ বছর বাঁচে। এর মধ্যে প্রায় ১০ বছর তারা কর্মক্ষম থাকে। এ কারণে ১০ বছর পর কুকুরগুলোকে অবসরে পাঠানো হয়।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.