নাটোরে অধ্যক্ষকে পেটানোর ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান কালু গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

কমিটির বিরোধ নিয়ে নাটোর সদর উপজেলার গোলাম ইয়াসিনিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাফর বরকতকে মারধরের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান কালুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার (০৩ আগস্ট) রাতে ইউপি চেয়ারম্যানসহ প্রায় ৫০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে ভুক্তভোগী মাদ্রাসাশিক্ষক। মামলার পরপরই ইউপি চেয়ারম্যান কালুকে গ্রেফতার করা হয়। এলাকাবাসী জানায়, প্রায় ৭ মাস আগে নাটোর সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর খোলাবাড়িয়া ইউনিয়নের গোলাম ইয়াসিনিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি করা হয় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম মাসুমকে। এ নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল।

বুধবার দুপুরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান কালু সঙ্গীয় লোকজন নিয়ে মাদ্রাসায় উপস্থিত হয়ে মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাফর বরকতের মারতে উদ্যত হলে তার সঙ্গে থাকা লোকজন অধ্যক্ষ জাফরকে মারধর করে, প্রকাশ্যে রাস্তা দিয়ে জামার কলার ধরে টেনে হিঁচড়ে নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে আটকে রাখে।

মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির বর্তমান সভাপতি ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম মাসুম বলেন, ‘নাটোর-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল আমাকে এই মাদ্রাসার সভাপতি করেছেন। সম্প্রতি জেলা আওয়ামী লীগে পরিবর্তন আসার পর তাঁর প্রতিপক্ষরা চেয়ারম্যান নুরুজ্জামানকে এখানে সভাপতি করার তৎপরতা চালাচ্ছিলেন। এর অংশ হিসেবেই আজ মাদ্রাসায় গিয়ে একজন জ্যেষ্ঠ শিক্ষককে মারধর করেছে। পুলিশ সুপার নিজে জরুরি পদক্ষেপ না নিলে হয়তো ওই শিক্ষক মারাই যেতেন।

আহত জাফর বরকত বলেন, চেয়ারম্যান নিজে চৌকিদারের লাঠি নিয়ে আমাকে বেধড়ক মারধর করেন। তার দুই হাঁটুর উপরে ও নিচে এবং পিঠসহ নানা স্থানে মারধর করা হয়। মারধরে রক্ত জমে গেছে।

খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে অধ্যক্ষকে উদ্ধার করে। নাটোর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসিম আহমেদ জানান, এ ঘটনায় বুধবার রাতে শিক্ষকের পক্ষ থেকে চেয়ারম্যানসহ প্রায় ৫০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। রাতেই চেয়ারম্যান কালুকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.