খেলাধুলায় শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের জন্য কঠোর প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী

observerbd.com 1667977369
ডেস্ক খবর ঃ
খেলাধুলায় শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের জন্য কঠোর প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মানসিক শক্তি ও আত্মবিশ্বাস অর্জনের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।“মানসিক শক্তি এবং আত্মবিশ্বাস জরুরীভাবে প্রশিক্ষণের সাথে সবসময় প্রয়োজন। আপনি যত বেশি প্রশিক্ষণ পাবেন তত বেশি শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করবেন,” তিনি বলেন।প্রধানমন্ত্রী এই বছরের সেপ্টেম্বরে কাঠমান্ডুতে SAAF মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপ ২০২২  জয়ের জন্য বাংলাদেশ মহিলা ফুটবল দলের সদস্যদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছিলেন।প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের (পিএমও) শাপলা হলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি বিজয়ী জাতীয় দলের খেলোয়াড়, কোচ ও কর্মকর্তাদের মধ্যে পুরস্কারের অর্থ ও অন্যান্য আর্থিক সুবিধার চেক বিতরণ করেন।বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল চারবারের ফাইনালিস্ট এবং স্বাগতিক নেপালকে ৩-১ গোলে হারিয়ে তাদের প্রথম সাফ শিরোপা জিতেছে।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশের খেলোয়াড়দের মনে রাখতে হবে যে, জাতি হিসেবে বাঙালিরা সবসময় বিজয়ী, কারণ তারা মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে তাদের স্বাধীনতা অর্জন করেছে।“আমরা একটি বিজয়ী জাতি। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা আমাদের স্বাধীনতা অর্জন করেছি। খেলাধুলায়ও এটা আপনাদের মনে রাখতে হবে। যুদ্ধে আমরা জিতেছি, খেলাধুলায়ও আমরা জিতব। আপনাদের সবাইকে এই মনোভাব নিয়ে চলতে হবে। তারপর সাফল্য আসবে,” তিনি খেলোয়াড়দের বলেছিলেন।তিনি বলেন, গত 14 বছরে তার সরকারের গৃহীত এই ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়নের কারণে দেশের ক্রীড়াঙ্গন শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করছে।তিনি বলেন, “আমরা তৃণমূল পর্যায় থেকে সব খেলার আয়োজন করার চেষ্টা করছি। এখন প্রতিটি জেলায় স্টেডিয়াম রয়েছে যা প্রতিটি খেলার জন্য ব্যবহার করা হবে।”প্রতিটি উপজেলায় মিনি স্টেডিয়ামের কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, এগুলো সব ধরনের খেলাধুলার জন্য ব্যবহার করা হবে। এমনকি স্কুলগুলি তাদের বার্ষিক খেলাধুলার জন্য এটি ব্যবহার করতে পারে।এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, সরকার ১২৫টি উপজেলায় ১২৫টি শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ করেছে এবং দ্বিতীয় ধাপে ১৮৬টি মিনি স্টেডিয়ামের কাজ শুরু হয়েছে এবং তৃতীয় ধাপে ১৭৩টি শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ করা হবে।তিনি আরও বলেন, দেশের ক্রীড়াঙ্গনের উন্নয়নে সরকার প্রতিটি জেলায় ইনডোর স্টেডিয়াম নির্মাণ করবে এবং প্রতিটি বিভাগে বিকেএসপি থাকবে।প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাংস্কৃতিক ও সাহিত্যিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি শিশুদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য গড়ে তুলতে এবং তাদের মধ্যে দেশপ্রেমের চেতনা জাগ্রত করতে খেলাধুলায় জড়িত হতে হবে।তিনি উল্লেখ করেন, ১৯৯৬-২০০১ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের প্রথম মেয়াদে ফুটবলের উন্নত প্রশিক্ষণের জন্য ব্রাজিল,পর্তুগাল ও স্পেনের মতো দেশে খেলোয়াড়দের পাঠানো হয়েছিল।তিনি বলেন, সরকার ‘সবার জন্য খেলাধুলা’ নীতিতে বিশ্বাসী হওয়ায় বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শারীরিক প্রতিবন্ধীদের খেলাধুলায় সম্পৃক্ত করার জন্য সরকার পৃষ্ঠপোষকতা করছে।তিনি কান্ট্রি গেমস অ্যাসোসিয়েশনের মাধ্যমে গ্রামীণ গেমগুলিকে পুনরুজ্জীবিত করার উপর জোর দেন।শেখ হাসিনা বলেন, ঢাকা শহরের শিশুরা শারীরিক পরিশ্রম ছাড়াই ফ্ল্যাটে বসে ‘খামারের ছানার মতো’ হয়ে উঠছে।তিনি অভিভাবকদের এ বিষয়ে তাদের সন্তানদের প্রতি বিশেষ নজর দিতে এবং তাদের নিয়মিত খেলার মাঠে নিয়ে যেতে বলেন।“স্কুলগুলিতে অবশ্যই নিয়মিত খেলাধুলার ব্যবস্থা থাকতে হবে,” তিনি বলেছিলেন।তিনি বিত্তবানদের খেলাধুলার উন্নয়নে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। “অন্তত তারা তাদের সংস্থায় খেলোয়াড় নিয়োগ করতে পারে যাতে তারা টেনশন-মুক্ত জীবনযাপন করার জন্য জীবিকা অর্জন করতে পারে,” তিনি বলেছিলেন।যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী মোঃ সালাহ উদ্দিন, সাবিনা খাতুন এবং যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মেসবাহ উদ্দিন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *