ইউক্রেন যুদ্ধে কত অস্ত্র হারাতে হলো রাশিয়াকে

ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনে রুশ সেনারা তেমন দক্ষতা দেখাতে পারেনি বলে দাবি করছেন পশ্চিমা বিশ্নেষকরা। রুশ সেনাদের গোয়েন্দা তথ্য ও নেতৃত্বের ব্যর্থতা আছে বলেন তারা। যুদ্ধক্ষেত্রে নজিরবিহীন কৌশলগত ব্যর্থতা সেটাই প্রমাণিত করেছে। ফলে ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়াকে এ যাবৎ বিপুল পরিমাণ অস্ত্র হারাতে হয়েছে। খবর বিবিসির।

এ যুদ্ধে ইউক্রেনীয় বাহিনীর ব্যাপক প্রতিরোধের মুখে পড়েছে রুশ বাহিনী, যা বিশ্নেষকদের বিস্মিত করেছে। এতে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক সেনা হারানোর পাশাপাশি রাশিয়ার বিপুল পরিমাণ সমরাস্ত্রও ধ্বংস হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

অরিক্স নামের একটি পোর্টালের বরাতে জানা গেছে, ইউক্রেন যুদ্ধে ৬৭৫টি পদাতিক যুদ্ধযান হারিয়েছে রাশিয়া। ট্যাঙ্ক হারিয়েছে ৬১২টি। সাঁজোয়া যুদ্ধযান হারিয়েছে ৩৪৭টি। ১৬৩টি সেলফ-প্রোপেলড ও টউড কামান ধ্বংস হয়েছে। আর্মারড পার্সোনেল ক্যারিয়ার হারিয়েছে ১০৮টি। এ ছাড়া রাশিয়া এ যুদ্ধে এখন পর্যন্ত ড্রোন হারিয়েছে ৫৮টি। ৩৯টি হেলিকপ্টার ও ২৬টি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত হয়েছে। যুদ্ধজাহাজ ধ্বংস হয়েছে ৬টি। রুশ সমরাস্ত্রের এই ক্ষয়ক্ষতির নির্ভরযোগ্যতার বিষয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, ভিডিও ও ছবি দেখে এসব ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করা হয়েছে।

রাশিয়া ও ইউক্রেন নিয়মিত প্রতিপক্ষের ক্ষয়ক্ষতির তথ্য দিয়ে আসছে। তবে এ ক্ষেত্রে একে অপরের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বাড়িয়ে দেখানোর চেষ্টা করে বলে মনে করছেন বিশ্নেষকেরা। রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর আধুনিকায়নে নজর রাখা পশ্চিমা পর্যবেক্ষকেরা বিস্মিত। তাদের দাবি, পেশাদারি, নতুন প্রযুক্তি আত্তীকরণ ও নতুন যুদ্ধকৌশলে দীক্ষিত অন্তত কিছুটা হলেও উন্নতি করা একটি বাহিনী হিসেবে রুশ বাহিনীকে দেখা হয়। কিন্তু ইউক্রেন যুদ্ধে সাবেক রেড আর্মির বিবর্ণ চেহারাই ফুটে উঠেছে। বর্তমানে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে রুশ বাহিনীর আক্রমণেও একই ধরনের ভুল দেখা যাচ্ছে। যোগাযোগ ও সরঞ্জামের মতো আধুনিক যুদ্ধের প্রধান উপাদান অদক্ষ হাতে পরিচালনা করা হয়েছে। সর্বোপরি অপ্রত্যাশিতভাবে এ সংঘাতে কঠিন পরিস্থিতিতে পড়া একটি সেনাবাহিনী ভুলগুলো থেকে সামান্যই শিক্ষা নিয়েছে বলে মনে করছেন পশ্চিমা বিশ্নেষকরা।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.